Home / খেলাধুলা / অধিনায়কের চোখে সতীর্থরা

অধিনায়কের চোখে সতীর্থরা

স্পোর্টস ডেস্ক: সময়ের সেরা দল, সবচেয়ে অভিজ্ঞ দল— বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের সঙ্গে লেপ্টে আছে এই দুটি তকমা। অতীতকে ছাড়িয়ে যাওয়ার মনোবাসনা নিয়ে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের দ্বাদশ আসরে খেলতে নামছে বাংলাদেশ। অভিজ্ঞদের পাশাপাশি সময়ের সবচেয়ে প্রতিশ্রুতিশীল তরুণদের সম্মিলনে হয়েছে সময়ের সেরা দল।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একযুগেরও বেশি সময় ধরে খেলা পাঁচ সিনিয়র ক্রিকেটার ও দশ বছর পার করে দেয়া রুবেল হোসেনরাই অভিজ্ঞতার ধারক। বলা হচ্ছে দেশকে নিজের প্রতিভা, সামর্থ্যের সর্বোচ্চটুকু দেয়ার এটাই সেরা সময় বাংলাদেশের এই দলটার। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা বলছেন, তার চাওয়া বিশ্বকাপের মঞ্চে ভালো খেলুক বাংলাদেশ। আর তাতেই পূরণ হতে পারে দলকে নিয়ে সবার চাওয়া-পাওয়ার অঙ্ক।

বাংলাদেশের অধিনায়ক এই প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না আসলে সবার চাওয়া-পাওয়া কোন্ পর্যায়ের। চাওয়ার পর্যায়ের উপর নির্ভর করে। চাওয়া যদি হয় নকআউট পর্ব, তাহলে একরকম। যদি হয় বিশ্বকাপ জিতে আসতে হবে, তাহলে আরেকরকম। যদি হয় আপনি ভালো খেলবে বিশ্বকাপে, তাহলে আরেকরকম।’

আরও পড়ুন : ঝিনাইদহে মাইক্রোচাপায় স্কুলছাত্রীসহ নিহত ২

নড়াইল এক্সপ্রেস আরো বলেছেন, ‘তাই আমি আসলে ভালো খেলার পক্ষে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে যেমন বৃষ্টি না নামলে বাদ পড়তাম। আমি এসব অবস্থার মধ্যদিয়ে যেতে চাই না। অবশ্যই ভাগ্য প্রয়োজন হয় তার জন্য। কিন্তু ভালো খেলতে হবে, সেই প্রত্যাশা নিয়ে যাচ্ছি।’

প্রথম অধিনায়ক হিসেবে টানা দুটি বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছেন মাশরাফি। দেশের অভ্যন্তরে দলকে নিয়ে প্রত্যাশার পারদ যেমনই থাকুক সতীর্থদের নিয়ে দারুণ আত্মবিশ্বাসী তিনি। বাংলাদেশের বিশ্বকাপের ১৪ স্বপ্ন-সারথিকে নিয়ে কথা বলেছেন অধিনায়ক মাশরাফি। নেতৃত্বের গুরুভার পালন করা এই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার দলের ১৪ সতীর্থকে নিয়ে নিজের মনের আপন ছবিটার বর্ণনা দিয়েছেন এই প্রতিবেদককে। খোদ অধিনায়কের মুখেই শুনুন বিশ্বকাপে সহযোদ্ধাদের নিয়ে তার আশা-ভরসার গল্পটা। ভালো খেললেই আপনার এসব প্রক্রিয়ার দিকে আস্তে আস্তে পৌঁছানো যাবে। আমি অনিশ্চয়তাকে সঙ্গী করে বিশ্বকাপে যেতে চাই না।

অধিনায়কের চোখে সতীর্থরা

তামিম ইকবাল

সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য। তার ব্যাটিং লম্বা সময় ধরে করতে পারে। এই সামর্থ্য এখন বিশ্ব ক্রিকেটে খুব কম ওপেনারের আছে। তামিম তাদের মধ্যে একজন। এটা হচ্ছে আমাদের দলের মূল শক্তি।

সাকিব আল হাসান

দলের সেরা ক্রিকেটার।

মুশফিকুর রহিম

সেরা ব্যাটসম্যান বলবো না, তামিম সঙ্গে আছে। কিন্তু আপনি নির্ভর করতে পারেন। যে কোনো অবস্থান সামাল দিতে পারবে। যখন রান দরকার, রান করবে। যখন উইকেটে থাকার দরকার, থাকতে পারবে।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ

গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে বেস্ট পারফরমার। দলের যেটা সবচেয়ে প্রয়োজনীয় সময়।

মুস্তাফিজুর রহমান

যদিও আমি এখন ওদের থেকে অনেক সিনিয়র (পেস বোলার)। কিন্তু তারপরও আমি মনে করি, আমাদের পেস আক্রমণের মূল ভরসা।

সৌম্য সরকার

একই রকম। সমানভাবেই দুজন একরকম। ওর একটা বাড়তি সুবিধা আছে, বোলিং করতে পারে। দুজনই দুর্দান্ত ফিল্ডার।

লিটন কুমার দাস

ড্যাশিং ওপেনার। ১০ ওভারে আপনি যে রানটা প্রত্যাশা করছেন, তার থেকে বেশিও এনে দিতে পারে।

মোহাম্মদ মিঠুন

স্ট্রাইক রোটেট করেও উইকেটে সেট হতে পারে। এবং বড় রান করার সামর্থ্যও আছে। ও আসার পর আমাদের মিডল অর্ডারটা ভারসাম্যপূর্ণ ও পোক্ত হয়েছে।

সাব্বির রহমান

সম্ভবত ও হতে পারে বাংলাদেশের ‘এক্স ফ্যাক্টর’। যে গুরুত্বপূর্ণ রান দরকার শেষদিকে ম্যাচ জেতার জন্য, সেটা করার সামর্থ্য তার আছে।

মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত

খুব ভালো আত্মবিশ্বাসী খেলোয়াড়। ঘাটতিটা বুঝতে দেয় না। দলে এ ধরনের খেলোয়াড় অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

মেহেদী হাসান মিরাজ

ও আসলে ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার। আপনি শুরুতে ওকে দিয়ে বোলিংটা করাতে পারবেন। হয়তোবা যার ওভারটা আপনি ধরে রাখতে চাইছেন, সেখানে ওকে দিয়ে করাতে পারবেন। এবং এখানে অনেক দক্ষ। ব্যাটিংয়ে এখন অনেক উন্নতি করেছে। ফিল্ডিং দুর্দান্ত। তাই ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার।

রুবেল হোসেন

রুবেলকে আমি সবসময় একটু আলাদা চোখে দেখি। শেষ যত ম্যাচ খেলছে, মিডল অর্ডারে যে একটা ব্রেক থ্রু’র ব্যাপার থাকে, সেটা রুবেলই দিচ্ছে।

মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন

সম্ভবত আমার চোখে বাংলাদেশের পরবর্তী ১২ বা ১৫ বছরের ক্রিকেট ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় তারকা।

আবু জায়েদ রাহী

রাহীর কথা বলবো, উদীয়মান। অনেক কিছু দেয়ার আছে। যে দুই দিকেই বল সুইং করাতে পারে। একমাত্র বোলার যে, বলে-কয়ে সুইং করাতে পারে। আমি এখন ইনসুইং মারছি, এটা ইনসুইংই হবে। আউট সুইং মারতেছি, আউট সুইংই হবে। অন্য যারা তারা হয়তো বলবে, মারতেছি কিন্তু হবে না। তার মানে তাদেরটা হয়ে যায়। কিন্তু ও একমাত্র বোলার যে, সে মানে বলে সুইং করাতে পারে।

Check Also

আমিনুলের হাতে চোট, ৩ সেলাই

স্পোটস ডেস্ক: ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অভিষেক ম্যাচেই দুর্দান্ত বোলিং করে নজর কেড়েছেন লেগ স্পিনার …

%d bloggers like this: