Home / বিনোদন / ঢালিউড / ২০১৭ সালটি ভালো কাটেনি শাকিব-অপু জুটির

২০১৭ সালটি ভালো কাটেনি শাকিব-অপু জুটির

বিনোদন ডেস্ক : ২০১৭ সালে তাই প্রায় সময়ই গণমাধ্যমে উঠে এসেছে শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের নাম। ২০১৬ সালে অপু বিশ্বাস হঠাৎ করে ‘নিখোঁজ’ হয়ে যাওয়ার পর থেকেই মূলত গণমাধ্যমে খবর বেরোতে থাকে। পরে জানা যায়, অপু তখন সন্তানসম্ভবা ছিলেন।

অবশ্য এ বছরই সেসব গোপন খবর, অর্থাৎ শাকিবের সঙ্গে বিয়ে ও সন্তান জন্মদান, সবকিছু খোলাসা করেন অপু নিজেই।  ঢাকাই চলচ্চিত্রাঙ্গন উত্তপ্ত ছিল শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের দাম্পত্য ‘কলহ’ নিয়ে। আর সেটার উত্তাপ ছড়িয়েছে দর্শক ও ভক্তদের মাঝেও।

গত ১০ এপ্রিল বিকেল সাড়ে ৪টায় অপু বিশ্বাস একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সরাসরি সম্প্রচারিত অনুষ্ঠানে প্রথম প্রকাশ্যে দাবি করেন, তাঁর একটি ছেলেসন্তান রয়েছে। সেই সন্তানের বাবা বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক শাকিব খান।

অপু তখন বলেন, ‘শাকিবের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছিল ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল। বিয়ের সময় আমার নাম পরিবর্তন করা হয়েছিল। আমার নাম রাখা হয়েছিল অপু ইসলাম খান। বিয়ের সময় শাকিবের ভাই ও একজন প্রযোজক উপস্থিত ছিলেন।’

অপু বিশ্বাস জানান, ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর তাঁর ছেলের জন্ম হয়। নাম রাখা হয়েছে আব্রাম খান জয়।

অপু বিশ্বাস আরো বলেন, ‘ওর (শাকিব) পরিবারের সবাই জানত আমাদের বিয়ের কথা। আমি তো ওর পরিবারের সঙ্গেই থাকতাম। ওর বাসাতেই থাকতাম।’

বিষয়টি নিয়ে ক্ষিপ্ত হন শাকিব খান। তিনি এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘বাচ্চা আমার, কিন্তু অপুর সঙ্গে বিয়ে হয়নি।’ পরে শাকিব আবার বলেন, বিষয়টি নিয়ে মাথা গরম ছিল, তাই ও রকম কথা বলেছেন। পরে বিষয়টি মেনে নিলেও শাকিব খান অপু বিশ্বাসের সঙ্গে দেখা করেননি, কথাও বলেননি।

১৮ এপ্রিল ছিল শাকিব ও অপুর বিবাহবার্ষিকী। গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী সেদিন তাঁদের মধ্যে শুভেচ্ছা বিনিময়ও হয়নি। গত ২৭ সেপ্টেম্বর আব্রামের প্রথম জন্মদিন শাকিব ও অপু আলাদাভাবে পালন করেন। মসজিদে এতিমদের খাওয়ান শাকিব খান।

আর অপু বিশ্বাস অভিজাত হোটেলে প্রিয়জনদের নিয়ে কেক কাটেন, কিন্তু সেখানে শাকিব খান ছিলেন না। এ বিষয়ে পরে শাকিব খান বলেন, ‘বাচ্চার জন্য মানুষের দোয়া জরুরি, কেক কাটা নয়, তা ছাড়া আমার টাকায় অনুষ্ঠান করা হলো আর দাওয়াত কার্ডে আমার ছবি নেই, বিষয়টি হাস্যকর।

আবার জন্মদিনের দাওয়াত করা হয়েছে, তার মধ্যে আমার বিপক্ষের লোকই বেশি। আমার সন্তানের জন্মদিন করতে হলে চলচ্চিত্রের সবাইকে নিয়েই করতে হবে। এ ছাড়া এমন অনুষ্ঠান করা যাবে না।’

১১ অক্টোবর ছিল অপু বিশ্বাসের জন্মদিন। সেদিনও নিশ্চুপ শাকিব, দেশের মানুষ অপু বিশ্বাসের জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানালেও শাকিব খান তাঁর সঙ্গে কথা বলেননি। বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমে লেখালেখি হয়। এ ব্যাপারে অবশ্য কোনো মন্তব্য করেননি অপু বিশ্বাস।

১৮ নভেম্বর শাকিব খান অস্ট্রেলিয়া থেকে ঢাকায় ফিরে নিজের সন্তানকে দেখতে যান অপুর বাসায়, কিন্তু বাইরে থেকে তালা মারা দেখে তিনি জানতে পারেন, অপু কলকাতায় গিয়েছেন ছেলেকে বাসায় রেখে।

ছেলের সঙ্গে দেখা করতে না পেরে ক্ষেপে যান শাকিব খান। কথিত বয়ফ্রেন্ড নিয়ে কলকাতায় গিয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন শাকিব।

বিষয়টি নিয়ে অপু জানান, তিনি গোসলখানায় পড়ে গিয়ে ‘সি সেকশনে’র সেলাই ছুটে গিয়েছিল। যে কারণে দ্রুত কলকাতায় যেতে হয়েছে, তবে তিনি পরের দিনই ফিরে আসেন।

৪ ডিসেম্বর অপু বিশ্বাসকে ডিভোর্সের নোটিশ পাঠান শাকিব খান, প্রথমে তালাকের কাগজ পাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করলেও পরে অপু জানান, তিনি পরিবারের সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এ বিষয়ে শাকিব খান বলেন, ‘যে তাঁর সন্তানকে তালা মেরে রেখে যেতে পারে, স্বামীকে মানুষের কাছে বাজেভাবে উপস্থাপন করতে পারে, তার সঙ্গে সংসার করা সম্ভব নয়।’

আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম জানান, নোটিশ দেওয়ার পর আরো তিন মাস সময় পাবেন তাঁরা, বিচ্ছেদের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য।

Check Also

তামাকের বিরুদ্ধে “সিগারেট”

নাসিফ শুভ: স্লো পয়জন হিসেবে সিগারেট সারা বিশ্বব্যাপী পরিচিত। ধূমপানে একদিকে যেমন নিজের ক্ষতি হয়, …

%d bloggers like this: