Home / জাতীয় / শঙ্কার মধ্যে দিন কাটছে সেলুন ব্যবসায়ীদের

শঙ্কার মধ্যে দিন কাটছে সেলুন ব্যবসায়ীদের

নিউজ ডেস্কঃ মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্ব আতঙ্কিত অবস্থায় রয়েছে। বাংলাদেশেও এর বিস্তার দিন দিন বেড়েই চলছে। আর তাই করোনাভাইরাসের কারণে রাজধানীসহ সারা দেশের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। এর মধ্যে বন্ধ রয়েছে সেলুনও।

এই ভাইরাসটি মানুষের সংস্পর্শে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে বলে সেলুনে ঝুঁকি বেশি। তাই গত ২৬ মার্চ থেকেই রাজধানীর অধিকাংশ এলাকার সেলুন বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানান সেলুন ব্যবসায়ীরা।

রাজধানীর মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডি, জিগাতলা, শঙ্কর এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, বেশ কয়েকটি সেলুন যেমন- মেন্স লুক, সিগনেচার সেলুন, ভাই ভাই সেলুন, হেয়ার কাট সেলুন, রাজু হেয়ার কাট সেলুন, হেয়ার ফ্যাশন সেলুনসহ আরো অনেক সেলুন বন্ধ রয়েছে।

রাজধানীর ধানমন্ডি আনাম র‌্যাংগস প্লাজার সেলুন মেনস লুকের এক কর্মী মোহাম্মদ মুন্না রাইজিংবিডিকে জানান, আমাদের সেলুনে এসির সুযোগ-সুবিধা, ওয়াইফাই সুবিধাসম্পন্ন থাকায় ভিড় লেগেই থাকতো। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে সেলুন বন্ধ রাখা হয়েছে। এই ভাইরাসটি মানুষের মাধ্যমে দ্রুত সংক্রমণ ছড়াতে পারে। এই ভয়েই সেলুন বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজধানীর সেলুন ব্যবসায়ী মালিক সমিতির নেতারা।

তিনি বলেন, ‘দেশের জনগণও অনেক সতর্ক। করোনার ভয়ে অনেকেই আসছেন না সেলুনে চুল ও সেভ করার জন্য। তাই কাস্টমার নেই। তবে করোনার কারণে সেলুন বন্ধ থাকায় আয় রোজগার নেই। খুব কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছি। এমন যদি আর বেশি দিন বাসায় বসে কাটাতে হয় তাহলে সামনের দিনগুলো আমাদের মতো সেলুনে কাজ করা মানুষের জন্য খুব ভয়াবহ হবে।’

মোহাম্মদপুরের সেলুন মালিক সুনীল মজুমদার বলেন, ‘সরকারি নিষেধাজ্ঞা আসার দুই দিন আগে থেকেই সেলুন বন্ধ রেখেছি। সেলুনে চুল-দাঁড়ি কাটানোতে নাকি ঝুঁকি বেশি। এ কারণেই সেলুনে কয়েক দিন আগ থেকেই লোকজন আসা বন্ধ করে দিয়েছে।’

ধানমন্ডি ১৫ নম্বরের রাজু হেয়ার কাট সেলুনের মোহাম্মদ রাজু বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কথা শোনার পর থেকেই মানুষজন সেলুনে আসা বন্ধ করে দিয়েছে। সেলুন থেকে ভাইরাস ছড়াতে পারে এ ভয়েই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।’

তিনি বলেন, ‘প্রতিদিন যে আয় হতো তা দিয়ে নিজের সংসার চলত। আমার সেলুনে আরো চারজন কারিগর কাজ করে। তাদের সংসারও চালাতে হয়। কিন্তু বন্ধ থাকায় এখন খুব বিপদে পড়তে হচ্ছে। সেলুন ভাড়া মাস শেষে দিতেই হবে। জিনিসপত্রের দাম বেশি। কীভাবে সংসার চলবে তা নিয়ে চিন্তায় আছি।’

রাজধানীর শংকরে হেয়ার কাট সেলুনের মালিক পল্লব কুমার মোবাইল ফোনে রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘করোনার কারণে সেলুন বন্ধ রয়েছে। কবে খুলবে জানিনা। দোকানের মালিক ভাড়ার জন্য ফোন করেছিলো। আবার বাসা ভাড়াও দিতে হবে। কিন্তু পকেটে টাকা নেই। কী করবো সেটাই বুঝে উঠতে পারছিনা। সারা মাস কাজ করে যে টাকা আয় হয় তা দিয়ে এসব মেটাতে হয়। এরপর পরিবারের খরচ মিটিয়ে এমনিতেই তেমন কিছু থাকত না।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যাপক ডা. আনিসুর রহমান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘করোনাভাইরাস এমন একটি রোগ যা একজনের শরীর থেকে অন্য জনের শরীরে ছড়ায়। তাই এখন যে কোনো বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান যেমন হাট-বাজার, শপিং মল, সেলুন, বাস স্ট্যান্ডসহ নানা ধরনের স্থানে যাওয়া একদমই ঠিক নয়। আর সেলুনের বিষয়টাতো আরো ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ সেলুনে শেভ করতে গেলে, চুল কাটাতে গেলে তো ক্ষুর-কাঁচির ব্যবহার হয়, এটি থেকে ভাইরাস ছড়াতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাস প্রতিকার বা রোধ করতে আমাদের এখন অবশ্যই সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। তাই আমার মতে এখন আমরা যদি বাসায় বসেই সেভ করি বা চুল কাটি তাহলে এই ভাইরাস থেকে নিজেদের রক্ষা করা মোটামুটিভাবে সম্ভব।’

Check Also

রাতে জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) …

%d bloggers like this: