Home / জাতীয় / মানবকল্যাণে নিবেদিত ছিলেন জামিলুর রেজা চৌধুরী

মানবকল্যাণে নিবেদিত ছিলেন জামিলুর রেজা চৌধুরী

নিউজ ডেস্কঃ মানবকল্যাণে নিজেকে ব্যস্ত রাখতেন একুশে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য প্রকৌশলী সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও জাতীয় অধ্যাপক সদ‌্য প্রয়াত ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী। মৃত্যুর আগের দিনও বুয়েটের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সবাইকে করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষায় বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে গেছেন বলে জানিয়েছেন মরহুমের সাবেক সমকর্মীরা।

বুয়েটের শিক্ষক সমিতির সভাপতি এ কে এম মাসুদ মরহুমের স্মৃতিচারণ করে বলেন, জামিলুর রেজা চৌধুরী স্যারের সঙ্গে জীবনের দীর্ঘ সময় আমরা বুয়েটে কাজ করেছি। তার কাছে যেকোনো সমস্যা নিয়ে গেলে সহজভাবে তিনি তা সমাধান করে দিতেন। তার মতো এমন উজ্বল নক্ষত্র ও মেধাবী একজন মানুষকে হারিয়ে আমরা শোকাহত।

এই শিক্ষক নেতা বলেন, জামিলুর রেজা সবসময় বুয়েটের কল্যাণে পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। তিনি সবসময় মানব কল্যাণে কাজ করে যেতেন।  এতো কাজ, এতো দায়িত্ব কীভাবে পালন করেন স্যারের কাছে জানতে চাইলে বলতেন, কাজের মধ্যে মানুষকে বেঁচে থাকতে হয়, যেদিন মানুষের কাজ করার ক্ষমতা হারিয়ে যাবে সেদিনই মানুষের মৃত্যু ঘটবে। কাজের মধ্যে নিজেকে চিনতে হবে, তাই আমি নিজের দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করে থাকি।

এদিকে ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান বলেন, অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী ছিলেন এদেশের একজন স্বনামধন্য প্রকৌশলী, শিক্ষাবিদ ও গবেষক।

এছাড়া, তিনি বঙ্গবন্ধু সেতু প্রকল্পের প্রধান পরামর্শকসহ জাতীয় বিভিন্ন ক্ষেত্রে অত্যন্ত দক্ষতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। দেশের বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ, শিক্ষা বিস্তার ও প্রকৌশল গবেষণায় অসাধারণ অবদানের জন্য তিনি স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান বলেন, বাংলাদেশ একজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদকে হারালো, একজন বিশিষ্ট প্রযুক্তিবিদকে হারালো। সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে প্রযুক্তিগত দিক নির্দেশনার দিক থেকে তিনি যথেষ্ট ভূমিকা রেখেছেন।

ইতিহাসবিদ অধ্যাপক মেসবাহ কামাল জানান, এমন একজন শিক্ষকের প্রস্থান কখনো কাম্য নয়। বাংলাদেশ যে রকম প্রযুক্তির দিক থেকে বিশ্বমানের সেটির প্রমাণ দিয়েছেন তিনি। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বড় বড় অনেক মেগা প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে, বর্তমান পদ্মা সেতুর কার্যক্রমের তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। বাংলাদেশে গণিতের ভয় প্রযুক্তির ভয়গুলো কাটিয়ে উঠতে তিনি যথেষ্ট কাজ করে গেছেন।

কথা সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, তার হঠাৎ এভাবে চলে যাওয়াটা আমাদের মধ‌্যে বিরাট শূন্যতা সৃষ্টি করেছে। এমন একজন দেশপ্রেমিক মানুষের অনেক দিন বেঁচে থাকার প্রয়োজন ছিলো।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ বলেন, জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে দেশ একজন স্বনামধন্য, প্রথিতযশা ও আত্মনিবেদিত প্রকৌশলী হারালো, যিনি শিক্ষকতা ও দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে গেছেন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন অর রশিদ বলেন, অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী ছিলেন বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা প্রকৌশলী, গবেষক, শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী, তথ্য-প্রযুক্তিবিদ। তার মৃত্যতে আমরা অমূল্য সম্পদ হারালাম।

বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির চেয়ারম্যান শেখ কবির হোসেন বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পের প্রধান উপদেষ্টা জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যু দেশ ও জাতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।

Check Also

রাতে জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) …

%d bloggers like this: