Home / জাতীয় / বিনা খরচে রাজধানীতে আম পৌঁছে দেবে ডাক বিভাগ

বিনা খরচে রাজধানীতে আম পৌঁছে দেবে ডাক বিভাগ

নিউজ ডেস্ক:  নভেল করোনভাইরাস পরিস্থিতিতে আর্থিক ক্ষতি ঠেকাতে প্রান্তিক চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়িদের আম বিনা পয়সায় রাজধানীতে পৌঁছে দিবে ডাক বিভাগ। আগামীকাল মঙ্গলবার রাজশাহী ও বুধবার চাপাইনবাবগঞ্জ থেকে প্রতিদিন ১০টন করে আম রাজধানী ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হবে। এর পরে পর্যায়ক্রমে নওগাঁ থেকেও আম ঢাকায় পাঠানো হবে। আর এজন্য সবধরনের প্রস্তুতিও সম্পন্ন করেছে ডাক বিভাগ।

ঘূর্ণিঝড় আম্পানে রাজশাহী অঞ্চলে প্রায় ২০ শতাংশ আম পড়ে যায়। এতে চরম ক্ষতির মুখে পড়েন চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবাসয়িরা। সেই সাথে করোনা পরিস্থিতিতে মৌসুমী এই ফল রপ্তানি নিয়েও দুঃচিন্তার ভাঁজ পড়ে তাদের কপালে। তাই এমন পরিস্থিতিতে প্রান্তিক চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়িদের আম বিনা পয়সায় ঢাকায় পৌঁছে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডাক বিভাগ।

গতকাল (রবিবার) দুপুরে রাজশাহী জেলা প্রশাসকের সাথে এক বৈঠকে বসেন ডাক বিভাগ ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। ওই বৈঠকেই কাদের আম পাঠানো হবে তা নির্ধারণের দায়িত্ব দেয়া হয় কৃষি বিভাগকে। আর তাদের নির্বাচন করা প্রান্তিক চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়িদের আম পর্যায়ক্রমে ঢাকার কারওয়ান বাজার ও বাদামতলীতে পাঠানো হবে।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সামসুল হক জানান, এরই মধ্যে আমরা প্রান্তিক চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়িদের তালিকা করেছি। তাদের তালিকায় অনলাইন আম ব্যবসায়িদেরও নাম রয়েছে। তবে প্রথম অবস্থায় চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়িদের আম পাঠানো হবে।

যেসব ব্যবসায়ি দিনে অন্তুত দুই ট্রাক আম ঢাকায় পাঠিয়ে থাকেন এ ক্ষেত্রে তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। কেন না তারা যদি ডাক বিভাগের মাধ্যমে দিনে ৫টন আম বিনা পয়সায় পাঠাতে পারেন, তাহলে আর্থিকভাবে কিছুটা হলেও লাভবান হবে। চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ পর্যায়ক্রমে নওগাঁ জেলা থেকেও একই প্রক্রিয়ায় চাষি ও ব্যবসায়ি বাছাই করে তাদের আম পাঠানো হবে বলেও তিনি জানান।

ডাক বিভাগের এই পদক্ষেপে খুশি রাজশাহী অঞ্চলের চাষি ও ব্যবসায়িরা। পরিবহণ খরচ বেচে যাওয়ায় আর্থিক ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে উঠবে বলেও মনে করছেন তারা।

রাজশাহীর আমচাষি এন্তাজ আলী ও ব্যবসায়ি মনির হোসেন বলেন, ডাক বিভাগের এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়। বিনা পয়সায় আম পাঠাতে পারলে আমাদের পরিবহণ খরচ বাঁচবে। ফলে আমরা আর্থিকভাবেও বেশ লাভবান হবো।

তবে চাপাইনবাবগঞ্জের আম ব্যবসায়ি রিমন রহমান বলেন, সরকারি সংস্থার ব্যবস্থাপনায় আম পরিবহন করলে হয়তো খরচ কমবে। কিন্তু সময় মতো ডেলিভারি না হলে এবং অভিযোগ জানানোর পরও দ্রুত তা নিস্পত্তি করা হবে কি না এ বিষয় নিয়ে আমরা কিছুটা আস্থাহীনতায় ভুগছি।

তিনি আরো বলেন, যেহেতু আম কাঁচামাল সেহেতু পরিবহণে সময় বেশি লাগলে আম নষ্ট হয়ে যাবে। এতে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হবে ব্যবসায়ীদের।

তবে রাজশাহী বিভাগের ডেপুটি পোস্ট মাস্টার মো. ওয়াহেদুজ্জামান বলেন, কৃষক বন্ধু ডাক সেবার আওতায় বিভাগের রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ পর্যায়ক্রমে নওগাঁ থেকেও আম ঢাকায় পাঠানো হবে। প্রতি জেলা থেকে প্রতিদিন ৫টন করে আম নিয়ে একটি গাড়ি ঢাকায় যাবে। এতে করে চাষি ও কৃষকরা সরাসরি মুনাফা পাবেন।

করোনাভাইরাসের প্রকোপে জীবন-জীবিকাকে চলমান রাখতেই ডাক বিভাগের এই যুগান্তাকারী পদক্ষেপ বলছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তাই চাহিদা বেড়ে গেলে প্রয়োজনমত গাড়ির সংখ্যাও বাড়ানো হবে।

তিনি আরো বলেন, আগামীকাল (মঙ্গলবার) রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর বাজার থেকে বিনা পয়সায় আম পাঠানোর কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হবে। এখানে রাজশাহী জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হকসহ ডাক বিভাগের উর্দ্ধত্বন কর্মকর্তারাও উপস্থিত থাকবেন। এর পরদিন ৩ জুন চাপাইনবাবগঞ্জ জেলা থেকে আমের প্রথম চালান ঢাকায় নিবে ডাক বিভাগ।

Check Also

প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক

নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২১ সেপ্টেম্বের) …

%d bloggers like this: