Home / খেলাধুলা / বাংলাদেশের সামনে বড় লক্ষ্য

বাংলাদেশের সামনে বড় লক্ষ্য

স্পোর্টস ডেস্ক:  দুই ম্যাচের চেয়ে বোলিংয়ের শুরুটা হলো ভালো। ২৫ ওভার শেষেও নিউ জিল্যান্ডের রান রেট থাকল পাঁচের নিচে। কিন্তু সেই নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে পারল না বাংলাদেশ। কিউইরা গড়ল বড় স্কোর।

হোয়াইটওয়াশ করা আর এড়ানোর লড়াইয়ে ডানেডিনে বাংলাদেশের বিপক্ষে বুধবার ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ৩৩০ রান তুলেছে নিউ জিল্যান্ড।

ইনিংসের প্রথম ২৫ ওভারে কিউইদের রান ছিল ১২০। পরের ২৫ ওভারে এসেছে ২১০।

কেবল কলিন মানরো ছাড়া অবদান রেখেছেন দলের আর সবাই। ফিফটি করেছেন হেনরি নিকোলস, রস টেইলর ও টম ল্যাথাম। শেষ দিকে জিমি নিশাম ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম খেলেছেন ঝড়ো ইনিংস।

ইনিংসের সর্বোচ্চ ৬৯ রানের পথে টেইলর উঠে গেছেন দেশের হয়ে ওয়ানডে রানের চূড়ায়। বাংলাদেশের হয়ে সাইফ উদ্দিন ও মেহেদী হাসান মিরাজ বোলিং করেছেন নিয়ন্ত্রিত। মাশরাফি ভালো বোলিংয়ের ফাঁকে কিছু আলগা বলে দিয়েছেন রান।

সবচেয়ে হতাশার ছিলেন দলের অন্যতম সেরা বোলার মুস্তাফিজ। ১০ ওভারে গুনেছেন ৯৩ রান। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে আগে কখনোই দেননি ৬৩ রানের বেশি!

কিউই ব্যাটসম্যানদের রানিং বিটুইন দা উইকেট ছিল দুর্দান্ত। বাংলাদেশের গ্রাউন্ড ফিল্ডিং ছিল কখনও গড়পড়তা, কখনও বাজে।

ইউনিভার্সিটি ওভালে টস জিতে আগে বোলিংয়ের কাঙ্ক্ষিত সুযোগ পায় বাংলাদেশ। আগের দুই ম্যাচের তুলনায় বোলিংয়ের শুরুটাও হয় ভালো। পঞ্চম ওভারে দলকে ব্রেক থ্রু নেন দেন মাশরাফি।

কেন উইলিয়ামসনের বিশ্রামে এই ম্যাচে সুযোগ পান মানরো। বিপজ্জনক ওপেনারকে ৮ রানেই ফেরান বাংলাদেশ অধিনায়ক।

মুস্তাফিজের এক ওভারে ছক্কা ও চার মারলেও মার্টিন গাপটিলকে ডানা মেলতে দেননি অন্য বোলাররা। আগের দুই ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান পরিস্থিতি বুঝে খেলছিলেন রয়েসয়ে। তবে ৪০ বলে ২৯ করে আউট হয়ে যান শেকল ভাঙার চেষ্টায়। সাইফ উদ্দিনের বলে লং অনে অসাধারণ ক্যাচ নেন তামিম ইকবাল।

নিকোলস ও টেইলরের ব্যাটে সেই ধাক্কা সামল দেয় নিউ জিল্যান্ড। দুজন শুরুতে এগিয়েছেন এক-দুই রানে। জুটির প্রথম ৭ ওভারে বাউন্ডারি ছিল কেবল ১টি। ২৫ ওভার শেষেও নিউ জিল্যান্ডের রানরেট ছিল পাঁচের নিচে। এরপর দুই ব্যাটসম্যানই বাড়ান রানের গতি।

৯৯ বলে ৯২ রানের এই জুটি ভাঙে নিকোলসের বিদায়ে। দ্বিতীয় স্পেলে ফেরা মেহেদী হাসান মিরাজ ফেরান ৭৪ বলে ৬৪ রান করা বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকে।

পরের উইকেটেও নিউ জিল্যান্ড পেয়ে যায় আরেকটি কার্যকর জুটি। সিরিজে প্রথমবার ব্যাটিং পাওয়া টম ল্যাথাম স্বচ্ছন্দে ছিলেন শুরু থেকেই।

টেইলর পেরিয়ে যান একটির পর একটি মাইলফলক। ফিফটি ছোঁয়ার পথে দেশের মাত্র দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে স্পর্শ করেছেন ৮ হাজার রান।

খানিকপর স্টিভেন ফ্লেমিংকে ছাড়িয়ে হয়ে গেছেন নিউ জিল্যান্ডের হয়ে ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি রান স্কোরার। সাবেক অধিনায়ককে পেরিয়ে গেছেন টেইলর ৬৫ ইনিংস কম খেলেই!

এরপর অবশ্য আর বেশিদূর এগোতে পারেননি টেইলর। ৮২ বলে ৬৯ করে আউট হয়েছেন রুবেলের বাউন্সারে।

তবে সেই স্বস্তি দীর্ঘায়িত হয়নি খুব একটা। উইকেটে গিয়েই জিমি নিশাম দুটি ছক্কায় ওড়ান মাহমুদউল্লাহকে। রুবেলের এক ওভারে নিশামের দুই চার, ল্যাথামের দুই ছক্কায় আসে ২১ রান।

মুস্তাফিজকে ক্রস ব্যাটে খেলতে গিয়ে নিশাম বোল্ড হয়েছেন ২৪ বলে ৩৭ করে। মুস্তাফিজের ফুল টসেই ৫১ বলে ৫৯ করে ধরা পড়েছেন ল্যাথাম।

তাতে নিউ জিল্যান্ড ভুগতে হয়নি খুব একটা। প্রথম বলে ছক্কায় শুরু করেন ডি গ্র্র্যান্ডহোম, ইনিংস শেষে অপরাজিত ১৫ বলে ৩৭ রান করে। ৯ বলে অপরাজিত ১৬ মিচেল স্যান্টনার। শেষ ৮ ওভারে নিউ জিল্যান্ড তোলে ১০১ রান।

ব্যাটিং উইকেট ও ছোটো সীমানার এই মাঠের সবশেষ ওয়ানডেতে ইংল্যান্ডের ৩৩৫ রান তাড়ায় জিতেছিল নিউ জিল্যান্ড। সেটিই এখন বাংলাদেশের সামনে প্রেরণা!

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউ জিল্যান্ড: ৫০ ওভারে ৩৩০/৬ (গাপটিল ২৯, মানরো ৮, নিকোলস ৬৪, টেইলর ৬৯, ল্যাথাম ৫৯, নিশাম ৩৭, ডি গ্র্যান্ডহোম ৩৭*, স্যান্টনার ১৬*; মাশরাফি ১০-১-৫১-১, মুস্তাফিজ ১০-০-৯৩-২, রুবেল ৯-০-৬৪-১, সাইফ ১০-০-৪৮-১, মিরাজ ৯-০-৪৩-১, মাহমুদউল্লাহ ২-০-২৮-০)।

Check Also

ভবিষ্যদ্বাণী ভুল প্রমাণের জন্য ধন্যবাদ: ম্যাককালাম

স্পোর্টস ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের সাবেক তারকার ক্রিকেটার ব্রেন্ডন ম্যাককালাম সম্প্রতি ক্রিকেট বিশ্বকাপ-২০১৯ এর গ্রুপ পর্ব নিয়ে …

%d bloggers like this: