Home / আইন-আদালত / প্রধান পরিকল্পনাকারী জনি রিমান্ডে

প্রধান পরিকল্পনাকারী জনি রিমান্ডে

নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর কাকরাইলে মা ও ছেলেকে হত্যার ঘটনায় প্রধন আসামি আল আমিন ওরফে জনিকে পুলিশের হেফাজতে ছয় দিন জিজ্ঞসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন আদালত। গত শুক্রবার দিবাগত রাত ৩টায় গোপালগঞ্জ থেকে জনিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৩। রবিবার ঢাকা মহানগর হাকিম আহসান হাবীব আসামির রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার পরিদর্শক আলী হোসেন আসামিকে আদালতে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন। রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, মামলার সুষ্ঠু তদনত্মসহ চাঞ্চল্যকর ও নৃশংস খুনের মূল রহস্য উদঘাটন ও খুনের সময় আসামির সাথে থাকা অজ্ঞাতনামা সহযোগীদের সম্পর্কে তথ্য জেনে তাদের গ্রপ্তোর করার লক্ষ্যে আসামিকে হেফাজতে নিয়ে ১০ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে সহকারি পিপি হেমায়েত উদ্দিন খান হিরণ রিমান্ড মঞ্জুরের পক্ষে শুনানি করেন। বলেন, নিঃসন্দেহে এটি অত্যন্ত নিষ্ঠুর ও নৃশংস হত্যাকাণ্ড। ঠান্ডা মাথায় জোড়া খুনের ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে। সম্পত্তির কারণে মা ও স্কুল পড়ুয়া শিশু ছেলেকে খুন করার মূল পরিকল্পনাকারী এই আসামি। রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে পলাতকদের গ্রেপ্তার করা হবে। তদন্ত কর্মকর্তার প্রার্থিত মেয়াদে আসামির রিমান্ড মঞ্জুর করা হোক। তবে আসামির পক্ষে শুনানিতে কোনো আইনজীবী ছিল না।পহেলা নভেম্বর কাকরাইলের পাইওনিয়র গলির ৭৯/১ নম্বর বাসার গৃহকর্তা আবদুল করিমের প্রথম স্ত্রী শামসুন্নাহার করিম (৪৬) ও তার ছেলে শাওনকে (১৯) গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ঘটনার পরদিন রাতে নিহত শামসুন্নাহারের ভাই আশরাফ আলী বাদী হয়ে রমনা থানায় হত্যা মামলাটি দায়ের করে। মামলায় আবদুল করিম, তার দ্বিতীয় স্ত্রী শারমিন মুক্তা ও মুক্তার ভাই জনিসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়।

প্রসঙ্গত, এ ঘটনায় শামসুন্নাহার করিমের স্বামী আবদুল করিম ও করিমের দ্বিতীয় স্ত্রী মডেল শারমিন মুক্তাকে গ্রেপ্তারের পর গত ৩ নভেম্বর আদালত তাদের ছয় দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এরা বর্তমানে রিমান্ডে আছে।

Check Also

গংগাচড়ায় দোকান খোলা রাখায় জরিমানা

মোঃ শরীফুজ্জামান: রংপুরের গঙ্গাচড়ায় করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি আদেশ অমান্য করে প্লাস্টিক সামগ্রীর দোকান খোলা রাখায় …

%d bloggers like this: