Home / আর্ন্তজাতিক / পোকেমনের মতো ডাইনোসর!

পোকেমনের মতো ডাইনোসর!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কার্টুন সিরিজ আর গেমসের কল্যাণে পোকেমন চরিত্রগুলোকে এখন সবাই চেনেন। রংচংয়ে, বড় ধরনের লোমশ রেপটাইল আর রেকুনের মতো চেহারা। এ ধরনের প্রাণীগুলোকে পোকেমনের দুনিয়াতেই পাওয়া যায়, তাই না? কিন্তু এটা কল্পনা ছিল না। কারণ প্রাগৈতিহাসিক আমলে ছিল সাইনোসরোপটেরিক্স। এগুলো কিন্তু একেবারে পোকামনের মতোই ছিল। এই পৃথিবীতেই তারা ১২৬ মিলিয়ন বছর আগে বিচরণ করতো।

সাইনোসরোপটেরিক্সের একটি ফসিল আবিষ্কৃত হয়েছিল ১৯৯০ এর দশকে। এটাকে পাওয়া মাত্র ডাইনোসরের গোটা চিত্র সম্পর্কে নতুন করে ধারণা মেলে। ওটার দেহে লোমশ ত্বক ছিল। নতুন এক গবেষণায় বলা হচ্ছে, এই ফসিলগুলো প্রাচীন প্রাণীদের সম্পর্কে সম্যক ধারণা দিয়েছে বিজ্ঞানীদের। অনেক অদ্ভুত এবং অনাকাঙ্ক্ষিত প্রাণীদের খবর মিলেছে।

সাইনোসরোপটেরিক্সের তিনটি ভিন্ন ফসিলের অংশ থেকে অনেক তথ্য মিলেছে। ইউনিভার্সিটি অব ব্রিস্টলের জীবাশ্মবিদরা এই ডাইনোসরের দেহের লোমের রং সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন। জানতে পেরেছেন, ওটার দেহ ছিল হালকা আম্বার রংয়ের। তাকে অফ হোয়াইট রংয়ের স্ট্রাইপ ছিল। দাগগুলো সুবিন্যস্তভাবে ওটার মাথার পাশ দিয়ে বেঁকে গেছে। চোখের দুই পাশের গাঢ় রং আর পেটের নিচে হালকা রং নিয়ে প্রাণীটি পুরোপুরি আজকের রেকুনের মতোই দেখতে।

বিজ্ঞানীরা বলেন, এই জীবাশ্ম ডাইনোসরদের আরো অদ্ভুত ধরনের প্রজাতির সম্পর্কে ধারণা দিয়েছে আমাদের। শুধু তাই না, এ ধরনের প্রাণীর অস্তিত্ব আমাদের সেই সময়ের পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা দেয়। প্রাণীদের প্রজাতি এবং গায়ের রং পরিবেশ বিষয়েও অনেক তথ্য প্রদান করে। গাজিলিসের মতো এ যুগের প্রাণীদের একই বৈশিষ্ট্য দেখা যায়।

ইউনিভার্সিটি অব এডিনবার্গের বিশেষজ্ঞ স্টিভ ব্রুসাতে বলেন, আমাদের ধারণা ছিল ডাইনোসরদের লোম একটি নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যের ছিল। কিন্তু এতে যে স্ট্রাইপও ছিল তা নতুনভাবে জানা গেল। সূত্র : ফক্স নিউজ

Check Also

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ছাড়াল ৯ লাখ ১৩ হাজার

নিউজ ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ কোটি ৮৩ লাখ ২৪ হাজার …

%d bloggers like this: