Home / আর্ন্তজাতিক / নিউ ইয়র্কে ট্রাক দিয়ে ‘সন্ত্রাসী হামলায়’ নিহত ৮

নিউ ইয়র্কে ট্রাক দিয়ে ‘সন্ত্রাসী হামলায়’ নিহত ৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের লোয়ার ম্যানহাটানে সাইকেল চালানোর লেনে এক ব্যক্তি পিকআপ ট্রাক উঠিয়ে দিয়ে আটজনকে হত্যা করেছে। এ সময় আহত হয়েছে অন্তত ১১ জন। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় বিকেল ৩টা ৫ মিনিটে এ ঘটনা ঘটে। ওই ট্রাক থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় ২৯ বছর বয়সী একজনকে গুলি করে আটক করে পুলিশ। তার নাম সায়ফুল্লো সাইপভ। সে উজবেকিস্তানের নাগরিক। ২০১০ সালে সে অভিবাসী হিসেবে দেশটিতে যায়। নিউ ইয়র্কের মেয়র বিল ডি ব্লাসিও এ ঘটনাকে কাপুরুষোচিত ‘সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড’ হিসেবে অভিহিত করেছেন।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, হামলা দেখে মনে হচ্ছে খুবই অসুস্থ বিপজ্জনক কেউ এটি ঘটিয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ঘটনাটি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। এ ধরনের হামলা যুক্তরাষ্ট্রে হতে দেওয়া হবে না।

তিনি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

গণমাধ্যম জানায়, নিউ ইয়র্কে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের সন্ত্রাসী হামলার পরে এটাই সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী হামলা। ৯/১১-এর স্মরণে নির্মিত ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার মেমোরিয়ালের কাছেই লোয়ার ম্যানহাটানের রাস্তায় এ ঘটনা ঘটে। হ্যালোউইন উৎসবের কারণে ওই সময় রাস্তায় বেশ ভিড় ছিল।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকা জানিয়েছে, পিকআপটির কাছ থেকে তারা আরবিতে হাতে লেখা একটি চিরকুট পেয়েছে, যাতে হামলাকারীর সঙ্গে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সংশ্লিষ্টতা দাবি করা হয়েছে। এ ছাড়া পিকআপের ভেতর থেকে আইএসের পতাকার একটি ছবি উদ্ধার করা হয়েছে। তা ছাড়া হামলাকারী ট্রাক থেকে বেরিয়ে ‘সন্ত্রাসী হামলার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ’ বক্তব্য দিয়েছিল বলেও জানা গেছে। তবে এ ঘটনার সঙ্গে আইএস জড়িত কি না মার্কিন কর্তৃপক্ষ এখনো তা স্পষ্ট করে কিছু বলেনি।

নিহতদের পাঁচজন আর্জেন্টিনার নাগরিক। এঁরা বন্ধু ছিলেন। গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করে আরো চার বন্ধুর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে বেড়াতে এসেছিলেন তাঁরা। একজন মারা গেছেন বেলজিয়ামের। অন্য দুইজনের পরিচয় গতকাল পর্যন্ত জানা যায়নি। আহত ১১ জনের অবস্থা ‘গুরুতর হলেও জীবন সংশয়ী নয়’ বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নিউ ইয়র্কের পুলিশ বিভাগের কমিশনার জেমস ও’নিল জানান, রিটেইলার হোম ডিপো থেকে সাদা রঙের একটি পিকআপ ট্রাক ভাড়া নেয় হামলাকারী। স্থানীয় সময় বিকেল ৩টার দিকে ট্রাকটি যাত্রা শুরু করে। হামলাকারী এর পর সাইকেল চালানোর রাস্তায় পথচারীদের ওপর ট্রাকটি উঠিয়ে দেয় এবং বেশ কিছুদূর অতিক্রম করে। পরে একটি স্কুলবাসের সঙ্গে সংঘর্ষের পর ট্রাকটি থেমে যায়। এরপর পালিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ তাকে গুলি করলে তার পেটে গুলি লাগে। পরে তাকে আটক করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জেমস ও’নিল জানান, হামলাকারীর হাতে দুটি বন্দুক ছিল এবং হামলাকারীর দেওয়া ভাষ্য সন্ত্রাসী হামলার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। ঘটনাস্থল থেকে দুটি খেলনা বন্দুক উদ্ধার করা হয়। স্থানীয়রা অনেকেই সে সময় গুলির শব্দ শুনেছে বলে জানা গেছে।

বিবিসি জানায়, ঘটনার পর সাইকেলের লেনে বেশ কয়েকটি সাইকেল চূর্ণবিচূর্ণ অবস্থায় পড়ে ছিল। ইউগেন নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী এবিসি চ্যানেল সেভেনকে বলেন, সাদা রঙের পিকআপটি স্টুয়েভেসান্ট হাই স্কুলের কাছে ওয়েস্ট সাইড হাইওয়ে সংশ্লিষ্ট সাইকেলের লেনে উঠে দ্রুতগতিতে অসংখ্য মানুষকে আঘাত করে। পরে নয়-দশটি গুলির শব্দ শুনেছেন বলেও জানান ইউগেন।

স্থানীয় টেলিভিশন এনওয়াই ওয়ানকে ফ্র্যাংক নামের আরেক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, তিনি এক লোককে রাস্তার মোড়ে দৌড়াতে দেখেছেন। ফ্র্যাংকও পাঁচ-ছয়টি গুলির শব্দ শুনতে পান। ‘তার হাতে কিছু একটা ছিল, আমি দেখেছি। যদিও আমি বলতে পারছি না সেটা কী। পরে জেনেছি সেটা ছিল বন্দুক। ’ তিনি বলেন, ‘যখন পুলিশ তাকে গুলি করে, সবাই দৌড়ে পালাচ্ছিল, মাথা খারাপ পরিস্থিতি তখন, আমি আবার ওই লোকের হাতে কি তা দেখার চেষ্টা করলাম, ততক্ষণে সে পড়ে গেছে। ’

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘নিউ ইয়র্কের হামলা দেখে মনে হচ্ছে খুবই অসুস্থ বিপজ্জনক কেউ এটি চালিয়েছে। ’ অন্য এক টুইটে তিনি বলেন, ‘আমরা কোনো আইএস গোষ্ঠীর কাউকে মধ্যপ্রাচ্য বা অন্য কোনো স্থান থেকে হারিয়ে দেওয়ার পর এখানে অবশ্যই প্রবেশ করতে দেব না। ’

নিউ ইয়র্কের মেয়র বিল ডি ব্লাসিও এ ঘটনাকে ‘কাপুরুষোচিত সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড’ বলে অভিহিত করে বলেছেন, ‘এটি একটি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। আরো পরিষ্কার করে বললে, খুবই কাপুরুষোচিত সন্ত্রাসী কাজ। আমরা জানি এটি আমাদের শক্তিকে নষ্ট করার চেষ্টা। কিন্তু নিউ ইয়র্কবাসী খুবই শক্তিশালী, ধৈর্যশীল এবং আমাদের অগ্রযাত্রা কখনোই এ রকম সন্ত্রাসের কাছে থেমে যাবে না। ’

আটক সায়ফুল্লো সাইপভ সম্পর্কে সংবাদমাধ্যম জানায়, সে ২০১০ সালে অভিবাসী হিসেবে উজবেকিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রে যায়। ফ্লোরিডার ট্যাম্পায় এবং নিউ জার্সির প্যাটারসনে বসবাস করেছে। গাড়ি শেয়ার সার্ভিস উবার জানিয়েছে, সায়ফুল্লো তাদের কম্পানিতে কাজ করত। গত বছর মিসৌরিতে ট্রাফিক লঙ্ঘনের দায়ে তাকে একবার গ্রেপ্তার করা হয়েছিল বলে পুলিশের খাতায় রেকর্ড রয়েছে।

এদিকে উজবেকিস্তানের প্রেসিডেন্ট শাভকাত মিরজিওয়েভ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেছেন, তাঁর দেশ এই হামলার তদন্তের ব্যাপারে যেকোনো ধরনের সহায়তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে। উজবেকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে। সূত্র : বিবিসি, এএফপি, সিএনএন।

Check Also

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ছাড়াল ৯ লাখ ১৩ হাজার

নিউজ ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ কোটি ৮৩ লাখ ২৪ হাজার …

%d bloggers like this: