Home / আর্ন্তজাতিক / নিউজিল্যান্ডে হামলাকারীর সাথে সম্পর্ক আছে কানাডার মসজিদে হামলাকারীর
Police cordon off the area in front of the Masjid al Noor mosque after a shooting incident in Christchurch on March 15, 2019. - Attacks on two Christchurch mosques left at least 49 dead on March 15, with one gunman -- identified as an Australian extremist -- apparently livestreaming the assault that triggered the lockdown of the New Zealand city. (Photo by Tessa BURROWS / AFP)

নিউজিল্যান্ডে হামলাকারীর সাথে সম্পর্ক আছে কানাডার মসজিদে হামলাকারীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সামাজিক মাধ্যমে এই বন্দুকধারী যে মতাদর্শ প্রকাশ করেছে, তাতে রয়েছে মোট ৩৭টি পাতা এবং প্রায় ১৬ হাজার৫০০ শব্দ। এই ইস্তেহারটিকে সে প্রকাশ করেছে ‘দ্য গ্রেট রিপ্লেসমেন্ট’ নাম দিয়ে। সেখানে এই মতাদর্শের মাধ্যমে ‘নতুন সমাজ গড়ার লক্ষ্যে পদক্ষেপ’ করার কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি অনুপ্রবেশকারী এবং শরণার্থীদেরকেই পৃথিবী জুড়ে সমস্ত সঙ্কটের মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ইউরোপের মাটি থেকে বিদেশিদের তাড়াতে এবং ইউরোপের লক্ষ লক্ষ শ্বেতাঙ্গ মানুষকে দাসত্ব থেকে মুক্ত করার কথাও বলা হয়েছে এই ইস্তাহারে। শ্বেতাঙ্গ আধিপত্য নিয়ে একটি স্লোগানও দেয়া হয়েছে এই ইস্তেহারে। বলা হয়েছে, ‘আমাদের নিজেদের মানুষদের অস্তিত্বের বিষয়টি আমাদেরকেই দেখতে হবে। কারণ, আমাদের শ্বেতাঙ্গ শিশুদের ভবিষ্যত আমাদেরই হাতে।’

প্রাথমিক তদন্তে জানা যাচ্ছে, এই অস্ট্রেলীয় নাগরিক বেশ কিছু দিন ধরেই ঘাঁটি গেড়েছিলেন নিউজিল্যান্ডে। কিন্তু নিউজিল্যান্ড পুলিশের সন্দেহভাজনদের তালিকায় তিনি ছিলেন না। সামাজিক মাধ্যমে বেশ কিছু দিন ধরে চরমপন্থী মতাদর্শের কথা প্রচার করলেও তাকে কেন নজরদারির তালিকায় রাখা হয়নি, তা নিয়ে সরব হয়েছে নিউজিল্যান্ডের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।

এই ভয়াবহ নাশকতার আগের মুহূর্তেও সে ছিল অস্বাভাবিক রকমের শান্ত। মসজিদের সামনে গাড়ি পার্ক করে ভিতরে প্রবেশের আগে সে শুরু করে লাইভ ভিডিয়ো। আর শুরুতেই সে বলে, ‘তা হলে শুরু হয়ে যাক আজকের পার্টি।’এর পরই সে বন্দুক হাতে নিয়ে ঢুকে যায় মসজিদের ভিতরে।

সেই লাইভ ভিডিয়ো থেকে দেখা যায়, তার বন্দুকে লেখা আছে আলেসান্দ্রে বিসনেত্তা এবং লুকা ত্রাইনির নাম। ২০১৭ সালে কানাডাতে একটি মসজিদে হামলা চালিয়ে ছয় নিরপরাধকে হত্যা করেছিল আলেসান্দ্রে বিসনেত্তা। ২০১৮ সালে ইতালিতে আসা শরণার্থী আফ্রিকানদের উপর গুলি চালিয়েছিল লুকা ত্রাইনি। এর থেকেই স্পষ্ট, কৃষ্ণাঙ্গ এবং মুসলিম বিদ্বেষই ছিল এই শ্বেতাঙ্গ বন্দুকবাজের মতাদর্শের মূল কথা।

কৃষ্ণাঙ্গ এবং মুসলিম বিরোধী ভাবধারায় অনুপ্রাণিত হলেও কোনও দলের সাথে সে যুক্ত নয়, এমনটাই জানানো হয়েছে তার ইস্তেহারে। এমনকি নিজের কাজের জন্য তার কোনও অনুশোচনা থাকবে না বলেও জানিয়েছে এই বন্দুকধারী।

Check Also

পাকিস্তানে নামাজের সময় মসজিদে হামলা, নিহত ৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের কোয়েটার পাস্তুনবাদ অঞ্চলের রেহমানিয়া মসজিদের ভিতরে বিস্ফোরণে অন্তত ৩ জন নিহত হয়েছে। …