Home / জাতীয় / নকশা পেলে সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে লকডাউন কার্যকর

নকশা পেলে সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে লকডাউন কার্যকর

নিউজ ডেস্ক: এলাকাভিত্তিক বিস্তারিত নকশা বা ডিমার্কেশন না পেলে লকডাউন কার্যকর করা ‘সম্ভব নয়’ বলে জানিয়েছে ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এজন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান থেকে এলাকাভিত্তিক বিস্তারিত ডিমার্কেশন চাওয়া হয়েছে। ডিমার্কেশন বা নকশা পেলে সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে লকডাউন কার্যকর করা যাবে। দুই সিটি করপোরেশনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ৪৫টি এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে করোনা প্রতিরোধে গঠিত কেন্দ্রীয় টেকনিক্যাল কমিটি। এরমধ্যে দক্ষিণ সিটির ২৮টি ও উত্তর সিটির ১৭টি এলাকা রয়েছে। কমিটির গত শনিবারের সভায় এসব এলাকাকে চিহ্নিত করা হয়। আর সিটি করপোরেশন বলছে, তারা এলাকাগুলোর নাম পেলেও লকডাউন কার্যকর করার জন্য অফিসিয়ালি মাদার প্রতিষ্ঠান (নিয়ন্ত্রক মন্ত্রণালয়) থেকে কোনও নির্দেশ পায়নি। যে কারণে বিষয়টি নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে।

জানতে চাইলে ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের যে ১৭টি এলাকার কথা বলা হয়েছে সে বিষয়ে আমি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে বলে দিয়েছি, আমাকে যত দ্রুত সম্ভব জোন ও এলাকাভিত্তিক ডিমার্কেশন করে দিতে হবে। যদি সম্ভব হয়, কোন বাড়িতে, সম্ভব না হলে কোন লেনে, তার পরে হচ্ছে কোন মহল্লায়, কোন ওয়ার্ডে এটা আমাকে নির্দিষ্ট করে দিতে হবে। তাহলে আমরা এলাকাগুলোকে সুনির্দিষ্ট করে নিতে পারবো। কারণ আমাদের যেসব এলাকার নাম দেওয়া হয়েছে, সেটা কিন্তু অনেক বিরাট এলাকা। ম্যাপিং না করে দিলে এটা কার্যকর করা সম্ভব না। আমরা চাচ্ছি এলাকাকে যত কম্বাইন্ড করে দেওয়া যাবে, তত আমাদের ম্যানেজ করতে সুবিধা হবে।

ডিমার্কেশন আসলে লকডাউন বাস্তবায়ন করতে কত সময় লাগতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, আমি আগেও বলেছি ম্যাপিং চলে  এলে আমরা কাজ শুরু করবো। আমরা ২৮টি এসওপি (স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর) রেডি করেছি। ডিমার্কেশন পেলে সর্বনিম্ন ৪৮ ঘণ্টা ও সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আমরা লকডাউন করতে পারবো। সেই প্রস্তুতি আমরা নিয়ে রেখেছি। আমাদেরকে আগে জানাতে হবে, কোন এলাকার কতটুকু লকডাউন হবে।

তিনি আরও বলেন, পূর্ব রাজাবাজারে আমরা পরীক্ষামূলক লকডাউন করেছিলাম। এখন পর্যন্ত সেখানে সুন্দরভাবে লকডাউন কার্যকর রয়েছে। সেখানে অনেক অনেক চ্যালেঞ্জ চলে এসেছে। তাছাড়া রেড জোন এলাকার মানুষ সরকারি ছুটির আওতায় থাকবে। সেখানে অনেকেই আছে প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। তাদেরকেও এই ছুটির আওতায় আসতে হবে। আমাদের এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে। কারণ জীবন এবং জীবিকাকে নিয়েই করোনাকে ম্যানেজ করতে হবে। আমাদের স্থানীয় কাউন্সিলর, রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যক্তিদের নিয়ে কাজ করতে হবে। স্বেচ্ছাসেবকও জোগাড় করতে হবে। সে বিষয়ে অলরেডি আমরা কাজ শুরু করে দিয়েছি।

Check Also

রাতে জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) …

%d bloggers like this: