Home / আর্ন্তজাতিক / ট্রাম্প-টিলারসন দূরত্ব বাড়ছে!

ট্রাম্প-টিলারসন দূরত্ব বাড়ছে!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন শার্লটসভিলে জাতিগত উত্তেজনা প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অবস্থান থেকে তার দূরত্ব স্পষ্ট করেছেন। তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি ভার্জিনিয়া রাজ্যের শার্লটসভিলে শ্বেতাঙ্গদের সহিংসতা নিয়ে ট্রাম্পের মন্তব্য ‘আমেরিকার জনগণের মূল্যবোধ’কে প্রতিনিধিত্ব করে না। প্রেসিডেন্ট সবসময়ই তার নিজের মনোভাবই ব্যক্ত করেন।’ রোববার একটি টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে টিলারসন এসব কথা বলেন। খবর এএফপি ও দ্য গার্ডিয়ানের।

শার্লটসভিল শহরে উগ্র ডানপন্থীদের সমাবেশে প্রাণঘাতী সহিংসতা সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তরে টিলারসন দৃশ্যত জাতি সম্পর্কে অ্যামেরিকার মূল্যবোধকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মনোভাব থেকে পৃথক করেন। টিলারসন বলেন, জাতিগত অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামে দেশের দৃঢ়সংকল্প স্পষ্ট। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় (স্টেট ডিপার্টমেন্ট) থেকে আমরা অ্যামেরিকার মূল্যবোধ ব্যক্ত করি। আমরা মার্কিন জনগণের প্রতিনিধিত্ব করি, আমরা আমেরিকার মূল্যবোধের প্রতিনিধিত্ব করি, স্বাধীনতার প্রতি আমাদের অঙ্গীকার, সারা বিশ্বে সব মানুষের প্রতি সমান আচরণের জন্য আমাদের অঙ্গীকার এবং সেই বার্তা কোনোদিনই বদলায়নি।’ ওই মূল্যবোধের প্রগতি ও প্রতিরক্ষার প্রতি মার্কিন সরকার বা তার সংস্থাসমূহের অঙ্গীকার সম্পর্কে কারও কোনো সন্দেহ থাকা উচিত নয় বলেও টিলারসন মনে করেন।

উপস্থাপক ক্রিস ওয়ালেন্স প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পক্ষ সমর্থন করার জন্য টিলারসনকে আরেকবার সুযোগ দিয়ে প্রশ্ন করেন, তবে প্রেসিডেন্টের মূল্যবোধ কি? টিলারসন বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট তার নিজের মনোভাবই ব্যক্ত করে থাকেন। ক্রিস বলেন, আপনি কি ট্রাম্প থেকে নিজের দূরে রাখার চেষ্টা করছেন? উত্তরে টিলারসন বলেন, আমি আমার নিজস্ব মন্তব্য করেছি, যেমনটি গত সপ্তাহেও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে করা হয়েছিল।’

১১ ও ১২ আগস্ট শার্লটসভিলে শ্বেতাঙ্গ জাতিবাদী, শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদী, নব্য নাৎসি ও অপরাপর চরম ডানপন্থী গোষ্ঠীদের র‌্যালিতে এক নারী নিহত ও আরও অনেকে আহত হন। মার্কিন গৃহযুদ্ধের আমলের এক কনফেডারেট জেনারেলের মূর্তি অপসারণ করার বিরুদ্ধে এই ডানপন্থী প্রতিবাদের আয়োজন করা হয়েছিল। এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেন বর্ণবাদবিরোধীরা। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এ ঘটনা সম্পর্কে বেশ কয়েক ঘণ্টা নীরব থাকার পর যে বিবৃতি দেন, তাতে মনে হতে পারে যে, যারা বিক্ষোভ প্রদর্শন করছিলেন, তাদের তিনি নব্য নাৎসিদের সঙ্গে একই পর্যায়ে ফেলছেন। এতে বেশ সমালোচিত হন ট্রাম্প।

‘জাতিকে দ্বিধাবিভক্ত করার’ অভিযোগ তোলেন সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। রোববার তিনি বলেন, ‘আমাদের এমন একজন আমেরিকান প্রেসিডেন্ট আছেন, যিনি একদিকে নব্য নাৎসি ও ক্লু-ক্লুক্স-ক্ল্যানের সদস্যবৃন্দ এবং অপরদিকে যারা তাদের বিষ ও ঘৃণার বিরোধী- এই দুইয়ের মধ্যে নৈতিক সমতার কথা প্রকাশ্যভাবে ঘোষণা করেছেন। এবং এরই মাধ্যমে শ্বেতাঙ্গ জাতিবাদীদের সাহস দিয়েছেন ট্রাম্প।’ জাতিগত বৈষম্য সংক্রান্ত জাতিসংঘের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠানও শার্লটসভিলের ঘটনার প্রতি ট্রাম্পের প্রতিক্রিয়ার নিন্দা করেছে। এছাড়া, মার্কিন এক বিশ্ববিদ্যালয়ের গত সপ্তাহে প্রকাশিত জরিপ অনুযায়ী, মার্কিনিদের ৬০ ভাগ বনাম ৩২ ভাগ শার্লটসভিলের ঘটনা সম্পর্কে ট্রাম্পের মন্তব্যে সুখী নন। উত্তরদাতাদের একটি অনুরূপ শতাংশ জাতিগত সম্পর্কের ক্ষেত্রে ট্রাম্পের নীতি প্রত্যাখ্যান করেছেন। ট্রাম্প গত নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়া পর্যন্ত বিদ্বেষ ও পরস্পরের প্রতি বিরূপ মনোভাব বৃদ্ধি পেয়েছে বলে উত্তরদাতাদের দুই-তৃতীয়াংশের বিশ্বাস।

Check Also

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ছাড়াল ৯ লাখ ১৩ হাজার

নিউজ ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ কোটি ৮৩ লাখ ২৪ হাজার …

%d bloggers like this: