Home / জাতীয় / জেঁকে বসেছে শীত

জেঁকে বসেছে শীত

নিউজ ডেস্ক : কয়েকদিন ধরে হুট করেই জেঁকে বসেছে হাড়কাঁপানো শীত। দেশের উত্তরাঞ্চলে শীতের প্রকোপ আরো বেশি। প্রতিদিনই কমছে তাপমাত্রা। কনকনে এই শীতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন।

আবহাওয়া কার্যালয় জানিয়েছে, চলতি জানুয়ারি মাসে আরো দুটি শৈত্যপ্রবাহ হতে পারে। আজ শনিবার দেশের সর্বনিম্ম তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহী ও চুয়াডাঙ্গায় ৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়াবিদ মো. আবুল কালাম মল্লিক জানান, রাজশাহী রংপুর ও খুলনা বিভাগে অঞ্চল ভেদে শৈত্যপ্রবাহ আরো দু-তিনদিন থাকতে পারে।

এ ছাড়া টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, নেত্রকোনো, গোপালগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গলে শৈত্যপ্রবাহের আরো কয়েকদিন অব্যাহত থাকতে পারে বলে তিনি জানান।

গত বুধবার রাত থেকে দিনাজপুরে শৈত্য প্রবাহ শুরু হয়েছে। আজ শনিবার এ জেলার তাপমাত্রা নেমে এসেছে ৮ দশমিক ২ডিগ্রি সেলসিয়াসে। গতকাল শুক্রবার ছিল ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

দিনাজপুর আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, এখন থেকে প্রতিদিনই তাপমাত্রা কমে আসবে। এ মাসে আরো দুটি শৈত্য প্রবাহ বয়ে যাবে।

ঘন কুয়াশা ও কনকনে শীতে বাইরে বেরুনোর জো নেই। খেটে খাওয়া মানুষগুলো কাজে যেতে পারছে না। গত কয়েকদিনের হাড়কাঁপানো এই শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

সূর্যের মুখ দেখা গেলেও কনকনে বাতাস অব্যাহত রয়েছে। রাতের মতোই দিনের বেলায় যানবাহনগুলো হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে।

সকাল অবধি বৃষ্টির মতো ঝড়ছে শিশির। ঠান্ডায় জমে যাওয়ার মতো অবস্থা। শীতের তীব্রতা এত বেশি যে খুববেশি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছে না কেউ।এই শীতে যাদের উষ্ণ কাপড় কেনার সামর্থ্য নেই সেসব মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছে।

দিনাপুরে শৈত্যপ্রবাহ আরো কয়েকদিন থাকবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেন।

চুয়াডাঙ্গায় মাঝারি  শৈতপ্রবাহ চলছে। এতে জীবনযাত্রা যেন অচল হয়ে পড়েছে। দিনের বেলায় হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে যানবাহন। প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছে না।

আজ শনিবার আবহাওয়া অধিদপ্তর জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে ৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটিই এ বছরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

কনকনে এই শীতে শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। সদর হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ধারণ ক্ষমতার প্রায় তিনগুণ শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে।

এদিকে, ঘনকুয়াশার কারণে যানবাহন চলাচল দারুণভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। শীতবস্ত্রের অভাবে কষ্টে দিন কাটাচ্ছে দরিদ্র মানুষেরা।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি শীত মৌসুমে শীতার্ত মানুষের জন্য বিতরণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ১৮ হাজার ৯১৩টি কম্বল পাওয়া গেছে।

যার বেশির ভাগই ইতিমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। তবে মানুষের চাহিদার তুলনায় শীতবস্ত্র অপ্রতুল হওয়ায় বেসরকারি পর্যায়ে শীতবস্ত্র বিতরণের জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, চলতি মৌসুমে  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা এ বছরে এ পর্যন্ত সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও ) ডা. শামীম কবির বলেন, ‘শীত থেকে রক্ষা পেতে শিশুদের গরম জামা কাপড় ও ন্যাপকিন পরাতে হবে।

শীত থেকে দূরে রাখতে হবে। বৃষ্টি হলে ডায়ারিয়া ও নিমোনিয়া হতো। যেহেতু বৃষ্টি নেই, শীতজনিত কারণে শিশুদের কষ্ট হচ্ছে। তবে, হাসপাতালে পর্যাপ্ত ওষুধ আছে যেকোনো ধরনের সমস্যা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য বিভাগ প্রস্তত রয়েছে।’

জেলার ওপর দিয়ে কয়েক দিন ধরে বইছে শৈত্যপ্রবাহ। শ্রীমঙ্গলে আজও  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। হঠাৎ করে শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক  জানান, শনিবার সকাল ৬টার দিকে তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

গতকাল শুক্রবারও একই তাপমাত্রা ছিল। মৌলভীবাজার জেলায় জানুয়ারির শুরু থেকে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে চলে আসে।

বৃষ্টির মতো ঝিরঝির করে কুয়াশা ঝরছে। ঘন কুয়াশার সঙ্গে বইছে ঠান্ডা বাতাস। দিনের বেলায় হেডলাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে।

শীতের কারণে আগের তুলনায় লোক সমাগম কমেছে জেলা শহরে। প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘরের বাইরে বের হতে চাইছে না।

Check Also

রাতে জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) …

%d bloggers like this: