Home / দেশজুড়ে / ঢাকা / খালেদার সঙ্গে কাদেরের তুলনা হতে পারে না: হানিফ

খালেদার সঙ্গে কাদেরের তুলনা হতে পারে না: হানিফ

জাতীয় ডেস্ক: খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবি জানিয়ে আসা বিএনপি নেতারা ওবায়দুল কাদেরকে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে পাঠানোর যে তুলনা করেছেন, তা অবান্তর বলে উড়িয়ে দিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল আলম হানিফ।

তিনি বলেছেন, ওবায়দুল কাদের শুধু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকই নন, তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধাও। অন্যদিকে খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত একজন কয়েদি।

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট ও জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দণ্ড নিয়ে এক বছর ধরে কারাবন্দি খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার জন্য তাকে বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়ার দাবি বিএনপি তুললেও সরকার তাতে সাড়া দেয়নি। বিএনপি চেয়ারপারসনকে সরকারি হাসপাতাল বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা নিতে বলা হয়েছে।

গত রোববার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বিএসএমএমইউতে নেওয়া হয়। সেখানে তাকে দেখতে ভারত ও সিঙ্গাপুর থেকে চিকিৎসক ‍উড়িয়ে আনা হয়। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়েছে সিঙ্গাপুর।

দুটি ঘটনার তুলনা করে বিএনপি নেতারা বলছেন, কাদেরের যেমন উন্নত চিকিৎসা পাওয়ার অধিকার আছে, তেমনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদারও সেই অধিকার আছে।

বুধবার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে হানিফ বলেন, “একটা জিনিস এখানে খুবই দুঃখজনক। ওবায়দুল কাদের সাহেব শুধু বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকই নন, তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন; জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান।

“আর যার সাথে তুলনা করা হচ্ছে তিনি, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেননি; যুদ্ধের সময় পাকিস্তানের অবস্থান করেছে তাদের মন্ত্রী বানিয়ে গাড়িতে দেশের পতাকা তুলে দিয়েছে। যে স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেনি তার সঙ্গে একজন মুক্তিযোদ্ধার তুলনা অত্যন্ত দুঃখজনক এবং লজ্জার।”

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, “খালেদা জিয়া আদালতের দণ্ডপ্রাপ্ত একজন কয়েদি। তার চিকিৎসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত দিবে কারা কর্তৃপক্ষ। কারাগারে যে সব কয়েদিরা রয়েছেন, তাদের সুচিকিৎসা কোথায় কখন কিভাবে হবে সেটা পুরোপুরি কারা কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করে। এ নিয়ে কোন রাজনৈতিক দলের কোনো বক্তব্য থাকতে পারে না। বেগম জিয়ার সু-চিকিৎসার জন্য যেটা প্রয়োজন সর্বোচ্চটাই কারা কর্তৃপক্ষ করছে।”

নানা কর্মসূচি দিয়ে বিএনপি রাজনীতির মাঠে টিকে থাকতে চাইছে দাবি করে হানিফ বলেন, “রাজনৈতিক এজেন্ডাবিহীন বিএনপি বিভিন্ন সময় নানা কর্মসূচি দিয়ে মিডিয়ার মাধ্যমে মানুষের মনে টিকে থাকতে চাইছে।”

“তারা ক্ষমতায় থাকা অবস্থাতেও জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল। জনগণ তাদের বিরুদ্ধে ছিল। এখন ক্ষমতায় না থাকা অবস্থায় জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে তারা দেউলিয়া হয়ে গেছে।

“বিএনপির কর্মসূচি নিয়ে জনগণ এখন আর ভাবছে না। তারা সন্ত্রাসী দুর্নীতিবাজ, দেউলিয়া দল ।মানববন্ধনসহ এ ধরনের কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছে এতে করে কোন ফলপ্রসূ ফলাফল আসবে না।”

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন,  দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আবদুর সবুর, উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, উপ দপ্তর সম্পাদক সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

Check Also

যুবলীগ নেতার নকল ট্যাং তৈরির কারখানা সিলগালা

দেশজুড়ে ডেস্ক :  ব্রাহ্মণাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় এক যুবলীগ নেতার নকল ট্যাং তৈরির কারখানা সিলগালা করে …