Home / দেশজুড়ে / অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের পাশে জাককানইবি শিক্ষক সমিতি

অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের পাশে জাককানইবি শিক্ষক সমিতি

মমিনুল ইসলাম মমিন: করোনা ভাইরাস সংক্রমনে বাংলাদেশে সংকটময় পরিস্থিতি বিরাজ করছে। ছুটির ফাঁদে গোটা বিশ্ব। কিন্তু এমন ছুটি কি কেউ চেয়েছিলে? নিশ্চয়ই নয়। যে ছুটি আপনাকে ঘরবন্দি করে রাখে, যে ছুটি জীবন আর জীবিকার মধ্যে তৈরি করছে দ্বন্দ্ব; মানুষের কাছে সেই ছুটির নাম- আতঙ্ক, অনিশ্চয়তা, বিপন্ন মানবতার আরও নাস্তানাবুদ হওয়া! কোভিড নাইটিন বা করোনা ভাইরাস থমকে দিয়েছে পৃথিবীকে। ঘরবন্দি করেছে মানুষকে। কেড়ে নিয়েছে মানুষের যাপিত জীবনের চেহারাকে। তুলে দিয়েছে মানুষের মাঝে অদৃশ্য এক দেয়াল! কীভাবে ভাঙা হবে সেই দেয়াল? কীভাবে বের করা হবে আগামীতে ঘরবন্দি মানুষকে তা নিয়ে গবেষণা, চিন্তা-দুশ্চিন্তার শেষ নেই।

হয়তো এই অনিশ্চিত যাত্রা একদিন শেষ হবে। মানুষও ঘর থেকে বেরিয়ে আসবে। কিন্তু তারা কী ফিরে পাবেন তাদের স্বাভাবিক জীবন! এই প্রশ্নের উত্তরটাও আপাতত অজানা। তবে একটা জিনিস জেনে গেছেন সবাই। এই মুহূর্তে পৃথিবীর বড় সমস্যা মানুষের জীবন বাঁচানো। সেই চ্যালেঞ্জ নেওয়ার ক্ষমতাও যেন দিনে দিনে হারিয়ে ফেলছে পৃথিবীর সম্পদশালী উন্নত দেশগুলোও। ক্ষমতার জোরে, অর্থের দাপটে পৃথিবীকে যারা হাতের মুঠোয় বন্দি মনে করতেন, তারাও বাঁচার তাগিদে বারবার হাত ধোয়ায় ব্যস্ত! কোভিড-১৯ জানিয়ে দিল, কত যুদ্ধ শেষে, দেশে দেশে মানুষ যে সীমানা তৈরি করেছিল, কাঁটাতারের বেড়া দিয়েছিল, জলে, স্থলে, আকাশে এত যে নিরাপত্তা বলয় তৈরি করেছিল এক একটা দেশ, তা কত ঠুনকো! তাকে অকেজো করে দিয়ে এক দেশ থেকে আরেক দেশে হানা দিচ্ছে করোনা ভাইরাস। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর মানুষ কী এতটা অসহায় হয়ে পড়েছিল কখনো? নিশ্চয় না।

এমতাবস্থায়, জাককানইবি শিক্ষক সমিতি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দের সাথে একাধিক অনলাইন আলোচনার মধ্য দিয়ে দুই দিনের বেতন কর্তনের বিষয়ে একমত পোষণ করেন। যেখান থেকে এক দিনের বেতন বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রদান এবং এক দিনের বেতন দেশের অসহায় মানুষের প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যান তহবিলে প্রদানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের জন্য এক লক্ষ টাকা বরাদ্দ প্রদান করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৩টি বিভাগের ২৩০ জন অসচ্ছল ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সমুদয় অর্থ বন্টন করা হবে।

রবিবার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান মোবাইল ব্যাংকিং-এ একজন শিক্ষার্থীকে অর্থ সহায়তা প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এসময় উপাচার্য বলেন- “এটি একটি অসাধারণ ও মহতি উদ্যোগ, শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনে শিক্ষকদের এই সহায়তা নিশ্চয়ই একটি বিরল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে”। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক শাহজাদা আহ্সান হাবীব এবং কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যবৃন্দ। সাধারণ সম্পাদক শাহজাদা আহসান হাবীব বলেন- “শিক্ষার্থীরা আমাদের সন্তান কিংবা ছোট ভাই-বোনতুল্য। এই দুর্যোগে তারা ভালো থাকুক, সুস্থ থাকুক, এটাই আমাদের চাওয়া”। এই বিষয়ে শিক্ষক সমিতি সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম বলেন-“এদেশের খেটে-খাওয়া মানুষের টাকায় চলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, ফলে তাদের জন্য কিছু করা আমাদের মানবিক দায়িত্ব ও কর্তব্য।”

Check Also

টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত পিরোজপুরবাসী, বিপাকে শ্রমজীবী মানুষ

নিউজ ডেস্ক : বিগত কয়েক দিনের অপ্রত্যাশিত বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে পিরোজপুরের মানুষের জীবনযাত্রা। আর …

%d bloggers like this: